সর্বশেষ:

আমি জেনেবুঝে চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি »

আমি জেনেবুঝে চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
সদ্য মুক্তি পাওয়া ঢাকা অ্যাটাক চলচ্চিত্রে নওশাবার উপস্থিতি স্বল্প সময়ের। কিন্তু এই স্বল্প সময়েই দাগ কেটেছেন দর্শকদের মনে। গতকাল হয়ে গেল এই অভিনেত্রীর একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের উদ্বোধনী প্রদর্শনী। সবকিছু নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

নওশাবা l ছবি: প্রথম আলো‘ঢাকা অ্যাটাক’-এ কেমন সাড়া পেলেন?
সত্যি কথা বলতে কী, অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছি। বিশেষ করে তরুণেরা আমার চরিত্রটা অনেক বেশি পছন্দ করেছেন। সিনেমা মুক্তির পর ঢাকা ও ঢাকার বাইরের অনেক সিনেমা হলে গিয়েছিলাম। আসলে সাধারণ দর্শকদের মতামত ও অভিব্যক্তি শুনতেই যাওয়া। সবার উচ্ছ্বাস দেখে মনে হয়েছে যাওয়াটা সার্থক।
চরিত্রটা করার সময় প্রস্তুতি কেমন নিয়েছিলেন?
গর্ভবতী মায়ের চরিত্রে অভিনয় করা আসলেই একটু কঠিন। এটা করার সময় আমি খুব ভয়ে ছিলাম। এমনও হয়েছে, আমার দৃশ্যের হয়তো রাতে শুটিং, আমি ঠিকই সকাল ১০টায় শুটিং স্পটে হাজির হয়ে কৃত্রিম পেটটা বেঁধে নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছি। বারবার পরিচালককে বিরক্ত করেছি। চরিত্রটা পর্দায় উপস্থাপনের জন্য সব দিক থেকে সহযোগিতা করেছেন ঊর্মি ভাবি (ঢাকা অ্যাটাক-এর কাহিনিকার সানী সানোয়ারের স্ত্রী)। তাঁকে বারবার ফোন করে, কথা বলে জ্বালিয়েছি। বেশ কিছু প্রপস নিয়েছি। তিনি একটা সময়ে আমার চরিত্রের মতো সময়টা পার করেছেন। মজার ব্যাপার হলো, আমার হাতের আংটি, গলার মালাও কিন্তু তাঁর কাছ থেকে নেওয়া। এই চরিত্রটার জন্য আমি ছয় কেজি ওজন বাড়িয়েছিলাম।
সামনে কি তাহলে চলচ্চিত্রেই আপনাকে বেশি দেখা যাবে?
আমি আসলে চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাই। আমি মনে করি, আমার সব ধরনের চরিত্র করার সামর্থ্য ও ইচ্ছা আছে। সেটা কয়েক মিনিটের চরিত্র হলেও। আমি এখন পর্যন্ত যেসব চলচ্চিত্রে কাজ করেছি, কোথাও কিন্তু ঠেকায় পড়ে করিনি। আমি জেনেবুঝে চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি। ঢাকা অ্যাটাক-এর চরিত্রটা যখন করি, তখন কিন্তু অনেকেই বলেছেন ‘এটা কী করছ! তোমাকে তো উড়িয়ে দেবে।’ আমি কিন্তু উড়ে যাইনি। সামনে আরও কয়েকটি সিনেমা আসছে। সেগুলো দেখলে সবার ধারণা আরও বদলে যাবে।
আজ (গতকাল সোমবার) স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘কবর’-এর উদ্বোধনী প্রদর্শনী হলো।
এটি নির্মাণ করেছেন রাশিদ পলাশ। তাঁর একটি পরীক্ষামূলক কাজ এটা। পল্লিকবি জসীমউদ্‌দীনের ‘কবর’ কবিতা অবলম্বনে নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে দাদির চরিত্রটা আমার। কবিতার সঙ্গে মিলিয়ে কাজ করা খুব কঠিন।
নাটকে আর ফিরবেন না?
ফিরব, তবে গল্পটা হতে হবে দারুণ। না হলে সিনেমাই করার ইচ্ছা।

l সাক্ষাৎকার: হাবিবুল্লাহ সিদ্দিক

নিউজটি পড়েছেন 919 জন

আর্কাইভস