সর্বশেষ:

ধুনট উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব »

ধুনট উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বগুড়ার ধুনট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম তৌহিদুল আলম মামুনের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবসহ অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের ২ ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও ১০ ইউপি চেয়ারম্যান স্বাক্ষরিত অনাস্থা প্রস্তাবসহ অভিযোগপত্রটি রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের নিকট পাঠানোর লক্ষ্যে ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট জমা দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, একটি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে ধুনট উপজেলা গঠিত। এই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম তৌহিদুল আলম মামুন। তিনি বগুড়া জেলা বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ও ধুনট উপজেলা বিএনপি’র আহবায়ক। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুনীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

এরমধ্যে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, টিআর, কাবিখা, কাবিটাসহ চিকাশি ইউনিয়নে একই স্থানে ৭টি প্রকল্পের কাজ না করে অর্থ আত্মসাত, ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে এডিপি’র অর্থ ফেরত দেওয়া, চেয়ারম্যানের নামে বরাদ্দকৃত সরকারি জীপ গাড়িটি দলীয় (বিএনপি) কাজে ব্যবহার, উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে দলীয় কার্যক্রম, ২০% উৎকোচ ছাড়া বিল ভাউচারে স্বাক্ষর না করা, অবৈধভাবে উপজেলা পরিষদের কর্মচারীর (মালী) বেতন ভাতা স্থগিতসহ ২০টির অধিক অভিযোগ অনাস্থা প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত সরকারি জীপ গাড়িটি চাবিসহ ইউপি চেয়ারম্যানদের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

উক্ত অনাস্থা প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেছেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রেজাউল করিম বাচ্চু, নুরজাহান আকতার রিক্তা, পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশা, ইউপি চেয়ারম্যান এমএ তারেক হেলাল, হারুন-অর-রশিদ সেলিম, ছাইফুল ইসলাম ফটিক, লাল মিয়া, জুলফিকার আলী ভুট্ট, আজাহার আলী, নাজমুল কাদির শিপন, গোলাম হোসেন সরকার ও মঈনুল হাসান মুকুল।

ধুনট উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এলাঙ্গী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ তারেক হেলাল বলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে পুরো পরিষদের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। এতে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন দারুন ভাবে ব্যহত হচ্ছে। এ কারণে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণসহ তদন্ত সাপেক্ষে তাঁর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের নিকট অভিযোগ করা হয়েছে।

ধুনট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম তৌহিদুল আলম মামুন বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে অনাস্থা প্রস্তাব করা হয়েছে এবং উপজেলা পরিষদের সরকারি জীপ গাড়িটি আমাকে ব্যবহার করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ বিষয় গুলো আইনগত ভাবে মোকাবেলা করা হবে। ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা বলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবসহ অভিযোগপত্রটি যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠানো হবে। পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আদেশে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশসংবাদবিডি

নিউজটি পড়েছেন 4829 জন

আর্কাইভস