সর্বশেষ:

ধুনটে সিনিয়র আ’লীগ নেতাদের উপর হামলা-ভাঙচুর, পণ্ড সম্মেলন »

ধুনটে সিনিয়র আ’লীগ নেতাদের উপর হামলা-ভাঙচুর,  পণ্ড সম্মেলন

বগুড়ার ধুনটে হামলা চালিয়ে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলন পণ্ড করেছে আরেক গ্রুপের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা চেয়ার-টেবিল ভাঙচুর করে।

বুধবার (৯ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার ধুনট ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টি আই এম নুরুন্নবী তারিক ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকনের পক্ষের নেতাকর্মীরা বুধবার সকালে ধুনট ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে সম্মেলনের আয়োজন করেন। সেখানে ধুনট ইউনিয়নের ৬, ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনের অনুষ্ঠান হওয়ায় কথা ছিল।

কিন্তু খবর পেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দাবিদার গোলাম সোবহান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দাবিদার মহসীন আলমের পক্ষের নেতাকর্মীরা সম্মেলন অনুষ্ঠানে হামলা চালান। এসময় সম্মেলনবিরোধী ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা সেখানে চেয়ার, টেবিলসহ ডেকোরেটারের আসবাব ভাঙচুর করেন।

উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে সম্মেলন আয়োজক পক্ষের নেতাকর্মীরা সেখান থেকে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে সেখানকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে।

jagonews24

সম্মেলন অনুষ্ঠানে হামলার বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টি আই এম নুরুন্নবী তারিক বলেন, দলের বহিষ্কৃত নেতাকর্মীরা সম্মেলন অনুষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে। পরে তাদের পক্ষের লোকজন এলাঙ্গীতে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধর করেছে। আপাতত সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ধুনট নিজেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দাবি করা মহসীন আলম বলেন, দলের নেতাকর্মীদের অবৈধভাবে বহিষ্কার করে গোপনে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের চেষ্টা করছিল আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ। খবর পেয়ে সম্মেলন অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের ৫০-৬০ নেতাকর্মীকে বহিষ্কারের সুপারিশ করে বর্তমান কমিটি। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন বহিষ্কারের সুপারিশে নাম থাকা নেতাকর্মীরা। এরপর তাদের মধ্যে গোলাম সোবহানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহসীন আলমকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে নতুন কমিটি গঠন করেন তারা। তবে এ কমিটির অনুমোদন দেয়নি জেলা আওয়ামী লীগ।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আল রাজী জুয়েল বলেন, সেখানে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদকের কোনো অস্তিত্ব নেই। তারা যেটি করছে সেটি নিজ দায়িত্বেই করছে।

এদিকে ভাঙচুরের বিষয়ে জানতে চাইলে ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, পুলিশ পৌঁছার আগেই সম্মেলন স্থলে ভাঙচুর করা হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনা এড়াতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জাগোনিউজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নিউজটি পড়েছেন 1378 জন

আর্কাইভস